Connect with us

বিনোদন

আবারও শাকিব চমক

Published

on

সুপারষ্টার শাকিব খান

সৃজনমিউজিক প্রতিবেদক :

এর আগে ‘শিকারি’ ছবিতে ওজন কমিয়ে, চুলের স্টাইল বদলে পর্দায় এসে প্রশংসিত হয়েছিলেন। এবার আবারও নতুন লুক নিয়ে হাজির হচ্ছেন। বলছি ঢাকাই চলচ্চিত্রের সুপারস্টার শাকিব খানের কথা। মুখে খোঁচা দাঁড়ি, স্টাইলিস গোঁফ, হালকা গড়ন- সব মিলিয়ে ঈদের ছবি ‘নবাব’-এর এর ট্রেলারে চমক দেখিয়েছেন তিনি।
জাজ মাল্টিমিডিয়া ও এসকে মুভিজের যৌথ প্রযোজনায় ছবিটি পরিচালনা করেছেন জয়দেব মুখার্জি। এতে শাকিবের সঙ্গে প্রথমবারের মতো জুটি বেঁধেছেন কলকাতার শুভশ্রী। সঙ্গে আছেন অমিত হাসান, খরাজ মুখার্জি, রজতাভ দত্ত, মেঘলা, সব্যসাচী চক্রবর্তী প্রমুখ।
২৫ মে ইউটিউবে উন্মুক্ত করা হয়েছে ছবিটির ট্রেলার। আঁড়াই মিনিটের ট্রেলার দেখে ভক্তরা বিভিন্ন ধরনের মন্তব্য করছেন। তাদের মতে, সফলতার দিক দিয়ে ‘শিকারি’কেও ছাড়িয়ে যাবে ‘নবাব’।
একই উৎসবের অন্য ছবি জিৎ অভিনীত ‘বস টু’র সঙ্গে ভালোই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে ছবিটি। সব মিলিয়ে ফের নজর কাড়লেন শাকিব খান।
এদিকে ঈদুল ফিতরে শাকিব খান-অপু বিশ্বাস জুটির ‘রাজনীতি’ ছবিটি মুক্তি পেতে পারে। গত কয়েক বছরের হিসেব অনুযায়ী, ঈদে কিং খানের দুই বা ততোধিক ছবি মুক্তির রেকর্ড রয়েছে। এবারও ব্যতিক্রম ঘটবে বলে মনে হচ্ছে না।
গানের মানুষ রকেট মন্ডল

রিপন চৌধুরী :

বাবা ছিলেন ফুটবলের মানুষ। মা গৃহিনী। বাড়িতে সঙ্গীতের তেমন চর্চাও ছিলোনা। আমিই একমাত্র। তখন ৫ কি ৬ বছর বয়স আমার। বাবা একটা গিটার কিনে দিলেন। সে সময়েই কলকাতার ছোটদের গানের দল ‘লিটল বিটলস অর্কেস্ট্রা’তে যাই। সেখানে আমার গুরু এ. বি মৌলিকের কাছে গিটার শিখতে শুরু করি। সেখানে পারফর্ম্যান্সও করতে থাকি। নিজেকে একজন গিটারিষ্ট হিসাবে পরিচয় দিতেই বেশি স্বাচ্ছন্দবোধ করি। বলতে পারেন বাবার প্রেরণাতেই আমার এতদূর আসা। নিজের শুরুর কথা এভাবেই শুরু করলেন ওপার বাংলার খ্যাতিমান সঙ্গীতকার রকেট মন্ডল।
বাংলাদেশেও তাঁর পরিচিতি রয়েছে সঙ্গীত পরিচালক হিসাবে। সম্প্রতি বাংলাদেশে বেড়াতে এসে কথা হয় সৃজনমিউজিক বিডি ডটকমেন প্রতিবেদকের সঙ্গে।

এই পথে চলতে চলতেই পেশা হিসাবে বেছে নেন সঙ্গীতকে। মাত্র ১৫ বছর বয়স থেকে তিনি স্টুডিওতে গিটার বাদকের কাজ শুরু করেন। সে সময়ের সব বড় বড় মিউজিক ডিরেক্টররা রকেটকে খুঁজে নিত। সে তালিকায় হেমন্ত মুখোপাধ্যায়, সত্যজিৎ রায় থেকে শুরু করে প্রায় সকলেই ছিলেন। সে সময়কে তিনি গানের স্বর্ণযুগ উল্লেখ করে বলেন,মৌলিক গান ছাড়া টিকে থাকা যায়না। সে সময় যে সমস্ত গান হয়েছে,তা মানুষ খুঁজে খুঁজে শুনতো। আজকাল তা আর হয়না। গান বা শিল্পী কিছুই বেশীদিন টিকছেনা। এ ভাবেই বললেন এখনকার গান সম্পর্কে।
কেন গান শিল্পী কোনটাই টিকতে পারছেনা? এর জবাবে তিনি বলেন, আমি মনে করি মিডিয়ার আধিক্য অনেকাংশে দায়ী। বিভিন্ন প্রতিযোগিতা হচ্ছে,নতুন নতুন শিল্পীকে নিয়ে মাতামাতি হচ্ছে কিছুদিন। আবার কিছুদিন পর আরেকজনকে নিয়ে হচ্ছে। আর তা মৌলিক গান নিয়ে নয়,হচ্ছে অন্যের জনপ্রিয় গান নিয়ে।ফলে শ্রোতারা আজ যাকে মনে রাখছে কাল তাকে ভুলে যাচ্ছে।
আগে গান করে টাকা হতো। এখন টাকা হলেই গান করা যায়। শিল্পীদের অধ্যাবসায়ের ব্যাপারে রকেট মন্ডল এভাবেই বলেন। দেখুন,সব জায়গায় একই অবস্থা। যে স্টুডিওতে অটো টিউনার নেই সেখেনে গান বানাতেই যায়না অনেকে! বেসুরো গলাকে সুরে ফেলানোর এই সফটওয়ারের অপব্যবহার আমাদের অনেক পিছিয়ে দিয়েছে।
এরেঞ্জার হিসাবে কবে থেকে কাজ শুরু করেন? তিনি স্মৃতি হাতড়ে বলেন,১৯৭৮ সালে ক্যালকাটা ইয়ুথ ক্যয়ারের রুমাগুহ ঠাকুরতা প্রথম আমাকে ঐ গ্রুপের এলবামের এরেঞ্জ করতে বলে। সেটাই আমার এরেঞ্জার হিসাবে প্রথম কাজ। এর পর আর পিছনে ফিরিনি।
বাংলাদেশের অনেক এলবামে সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন। সে অভিজ্ঞতা কেমন ছিলো?
রকেট মন্ডল বলেন, সমর দাস প্রথম আমাকে এখানে পরিচিত করেন।তিনিই আমাকে দিয়ে স্বাধীন বাংলা বেতারের গান গুলো নতুন করে করিয়ে নেন। এ ছাড়া আলাউদ্দিন আলী, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল,সাবিনা ইয়াসমিন,এন্ড্রু কিশোর সুবীর নন্দী সহ অনেকের এলবামে সঙ্গীত পরিচালনা করেছি। সবই স্মরণীয়। তবে,সর্বশেষ সাফ গেমসের মিউজিক আরেঞ্জমেন্ট করতে এসে আমি সাড়ে তিন মাস ঢাকায় ছিলাম,সেটা ছিলো আলাউদ্দিন আলী ভাইয়ের কাজ। অর্থাৎ ৮২ সাল থেকেই বাংলাদেশের গানের কাজ করছি। সর্বশেষ ন্যান্সীর গানে এরেঞ্জ করেছি কিছুদিন আগে।
মান ও বাণিজ্যিক দিক থেকে গানের বাজার সবখানেই মন্দা। পুনরুদ্ধারের ব্যাপারে কিছু ভাবছেন কি?
না,এটা খুব জটিল বিষয় হয়ে গেছে। পাইরেসি আর সফটওয়ার নির্ভর সঙ্গীত বন্ধ না হলে সেই সময়ের মত গান বা শিল্পী টিকবেনা। ওয়ান টাইমের মত হয়ে পড়েছে। এত বাজে অবস্থা কখনই ভাবিনি। ব্লেন্ডিং বা ফিউশনের নামে নকল ও লুপ চুরি করা গানের এই সময়টা কোন প্রকৃত সঙ্গীত শিল্পীর ভালো লাগার কথা নয়।
আমি প্রায় সবার সাথেই বাজিয়েছি। মান্না দে’র সাথে শেষ ৮ বছর আমার বিশেষ স্মরণীয়।
তারপরও অতৃপ্তি থেকেই যায় হয়তো সব সৃজনশীল মানুষদের। রকেট মন্ডলেরও ব্যতিক্রম ঘটেনি।
তিনি প্রায় ৩০ টি বাংলা ছবির সঙ্গীত পরিচালনা করলেও,হিন্দি ছবিতে কাজ করার বাসনা রয়েই গেছে। হাল ছাড়েননি,আশা ছাড়েননি। চেষ্টা করছেন হয়তো অচিরেই সেখানেও কাজ শুরু করবেন।

এবারের বাংলাদেশ আসাটা একটু অন্যরকম। পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসা। কেমন লাগলো?
অসাধারণ এক কথায়। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সমুদ্র সৈকতে এসে আমরা সবাই দারুণ উপভোগ করেছি। এখানকার আতিথেয়তা,মানুষ সব মিলিয়ে অন্যরকম ভালো লাগা।

Dhaka Attack Unreleased Song

Advertisement
কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী
সৃজন মিউজিক2 years ago

কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী (ভিডিও)

Praner Giutar
নতুন গান3 years ago

ভালোবাসা দিবসে দুই বাংলার মিশ্রণে ‘প্রাণের গীটার’

প্রাণের গীটার
নতুন গান3 years ago

মাহফুজ ইমরানের‌ এক বছরের সাধনার ফসল ‘প্রাণের গীটার’ (ভিডিও)

কণ্ঠশিল্পী শাহজাহান শুভ
সৃজন মিউজিক3 years ago

শাহজাহান শুভ’র ‘কথামালা’ গান অন্তর্জালে

ওমরসানী, শাকিব খান ও জায়েদ খান
বিনোদন3 years ago

শাকিব খানের কাছে ক্ষমা চাইলেন জায়েদ খান

নতুন গান3 years ago

রোহিঙ্গাদের নিয়ে গান গাইলো অবস্‌কিওর

সৃজন মিউজিক3 years ago

প্রকাশ হলো ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবির অরিজিত সিংয়ের সেই গান

ব্যান্ড সঙ্গীত3 years ago

শাকিরার নতুন মিউজিক ভিডিও ‘পেরো ফিয়েল’

মিউজিক ভিডিও3 years ago

তানজীব সারোয়ারের নতুন গান

মিউজিক ভিডিও3 years ago

ইউটিউবে কুমার বিশ্বজিতের নতুন গান ‘জোছনার বর্ষণে’

Trending