Connect with us

বিনোদন

নাটকের প্রতি সততা ও ভালোবাসা হারিয়ে গেছে : জাহিদ হাসান

Published

on

অভিনেতা জাহিদ হাসান

জাহিদ হাসান :

১৯৯০ সালের দিকে আমি পুরোপুরি অভিনয় শুরু করি। তখন তো বিটিভি-ই একমাত্র চ্যানেল। ঈদের নাটক, আনন্দ মেলা এবং অন্যান্য ঈদের অনুষ্ঠান প্রচুর মানুষ দেখত। গ্রামের বাড়িতে সাদা-কালো টিভিতে নিজেও দেখতাম। অ্যানটেনা ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে এমনকি পর্দা ঝিরঝির করলেও মুখ ডুবিয়ে থাকতাম টিভিতে। ওই সময় একটা নাটকে অভিনয় করা ছিল বিরাট ব্যাপার। তখন অতটা কাজের সুযোগ পেতাম না। কিন্তু সবার কাজ দেখতাম। হুমায়ূন আহমেদের নির্মাণ, হুমায়ুন ফরীদির অভিনয়, আমজাদ হোসেনের ‘জব্বর আলী’সহ নানা কাজ দেখতাম। তারপর ১৯৯১ থেকে ’৯৪ সালে প্রতিবছরই যেকোনো একটা ঈদের নাটকে অভিনয়ের সুযোগ মিলেছে। এটা আমার সৌভাগ্যই বলা যায়। তারপর তো নিয়মিত অভিনয় করেছি। ঈদে নাটক প্রচারের পর যদি নাটকে পরা শার্ট বা পাঞ্জাবি পরে বের হতাম তাহলেই হয়েছে। অনেক দূর থেকে মানুষ চিনে ফেলত। কাছে এগিয়ে এসে ভিড় করত।

 

 

তখন চ্যানেল ছিল একটা। বাংলাদেশ টেলিভিশন। মানুষ ছিল ১০-১২ কোটি। এখন মানুষ ১৬ কোটির ওপরে আর চ্যানেল আছে ২৫টির ওপরে। তখন নাটকে অভিনয় করছি, এটাই ছিল আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু ২০১৭ সালে এসে যদি আমার উপলব্ধি জানতে চাওয়া হয় তাহলে বলব, এখন আন্দোলন হচ্ছে, এই নীতি সেই নীতি হচ্ছে কিন্তু নাটকের প্রতি সততা ও ভালোবাসা হারিয়ে গেছে। আমার নিজের কাছেও এখন ক্লান্তি লাগছে। এ কারণে এই ঈদে অনেকগুলো কাজ ছেড়েও দিয়েছি। আমি কাজ করে ঠিক আনন্দ পাচ্ছি না। চিত্রনাট্য থেকে নির্মাণ কোথাও তৃপ্তি পাচ্ছি না।

 

 

একটু খোলাসা করে বলি, আমাদের শুরুর সময়ে আমরা প্রান্তিক সিস্টেমে নাটক করতাম। মানে তিন মাস আগেই জানতাম কার নাটক যাবে বিটিভিতে। কে কে অভিনয় করবে। একটা প্রস্তুতি ছিল। যেমন, কে প্রযোজনা করবে, কে কে অভিনয় করবে। শুটিং কীভাবে হবে সবই। তারপর শুরু হতো মহড়া। তিন মাস পরে দাঁড়াতাম ক্যামেরার সামনে।

 

 

আর এখন পরিচালকেরা ফোন করে বলে, ‘ভাই, ১৬-১৭ ডেট আছে নাকি? লক করেন, চলেন একটা মাইরা দিই।’ আমি বলি ১৬-১৭ ডেট নিয়া কী করবা? উত্তর দেয় ‘নাটক করব’। বলি, স্ক্রিপ্ট কই? বলে, ‘মাইরা দিমুনি, চলেন’। এই মাইরা দেওয়া জিনিসটা আমি পারি না। অনেক সময় বলি, ডেট আছে কিন্তু আমি মারামারি করতে পারব না।

 

 

আমি বলছি না এই প্রজন্ম খারাপ। এই প্রজন্মের অনেক ট্যালেন্ট আছে। অনেক পেশাদার অভিনয়শিল্পী আছেন। কিন্তু সংখ্যায় খুবই কম। ওই সময়ে আমিও অতটা ট্যালেন্ট ছিলাম না।

 

 

তবে এখানে একটা ‘কিন্তু’ আছে। আমাদের সময় কোনো না কোনো দল থেকে টিভিতে অভিনয় করতে আসতাম। বিটিভির তালিকাভুক্ত ছিলাম। আমরা জানতাম কেউ কোনো না কোনো গ্রুপের। মানে আমাদের কাজের একটা গতি ছিল। কিন্তু এখন একটা ইউনিটে গেলে হয়তো দু-তিনজনকে চিনি। বাকি সব নতুন। মানে কেন্দ্রীয় দু-চারটি চরিত্র হয়তো চেনা মুখ নিয়ে বাকি সব নতুন লোক নেয়। কিন্তু প্যাকেজ শুরুর সময় একটা বা দুটি দৃশ্য হোক, নায়ক বা পথচারী চরিত্র হোক একজন অভিনেতাকেই নেওয়া হতো। কিন্তু এখন সেটা হয় না।

 

 

এখন আরেক চিন্তা হলো বাজেট। আগেই বলে দেওয়া হয়, আপনি এত টাকার মধ্যে নাটকটা বানাবেন। নাটক হবে কি হবে না, সেটা নিয়ে কারও মাথাব্যথা নেই। বাজেট দিয়েছি
ওইটার মধ্যে করে নিয়ে আসেন। আবার কিন্তু উল্টো ঘটনাও ঘটে। যেমন, গেল ঈদে অনেক টাকা বাজেট দিয়ে কিছু বিশেষ নাটক করা হলো। সব নাটক কি হিট হয়েছে? টাকা হলেই যে ভালো নাটক হবে, এটা কিন্তু নয়। দুটোর সমন্বয় খুব জরুরি। বাজেট ও নাটকের মান দুটোর সমন্বয় করতে হবে সবার আগে।

 

 

যত দূর জানি, এই সমন্বয়হীনতা চলছে ৪-৫ বছর ধরে। এ জন্য চ্যানেল, এজেন্সি ও নাটকের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরাই আসলে দায়ী। মজার ব্যাপার, অনেকের ধারণা, ঈদের সময় নাটকের বাজেট বেশি থাকে এ জন্য হয়তো সমস্যা হয় না। কিন্তু ঘটনা উল্টো। এক ব্যবসায়ীকে জিজ্ঞেস করেছে, ‘ব্যাপারী লাভ কেমন?’ ব্যাপারী উত্তর দিয়েছে, ‘স্যার, এই যে ব্যাপারী বললেন এইটাই লাভ।’ আমাদের ঈদের নাটকের অবস্থা হলো এই রকম। আলাদা করেই শুধু ‘ঈদের নাটক’ নামকরণ করা হয়।

 

 

তবে এখন দর্শকেরাও সচেতন হয়েছেন। বুঝতে হবে, আগে আমরা ট্যাপের পানি খেতাম, এখন বোতলের পানি খাই। দর্শকের স্বাদও তেমনই। পরিবর্তন হয়েছে তাঁদের রুচি ও স্বাদে। আগে চ্যানেল ছিল কম, দর্শক ছিল বেশি। এখন চ্যানেল বেশি কিন্তু দর্শক কম। আগে দেশে দেশে যুদ্ধ হতো সামনাসামনি। কিন্তু এখন সময় বদলে গেছে। এখন যুদ্ধ হয় অর্থনৈতিক ও মেধার ওপর ভর করে। একটু খেয়াল করলেই বোঝা যাবে, পার্শ্ববর্তী দেশসহ সব দেশই কিন্তু অস্ত্র নিয়ে সামনে এসে যুদ্ধ করছে না। তারা আসছে মেধা দিয়ে যুদ্ধ করতে এবং দখল করছে আমাদের বাজার। তাই আমাদেরও সেভাবেই এগিয়ে যেতে হবে। মেধা দিয়েই সবকিছু জয় করতে হবে। কারণ দিন শেষে মেধাবীরাই টিকে থাকবে।

Dhaka Attack Unreleased Song

Advertisement
কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী
সৃজন মিউজিক2 years ago

কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী (ভিডিও)

Praner Giutar
নতুন গান3 years ago

ভালোবাসা দিবসে দুই বাংলার মিশ্রণে ‘প্রাণের গীটার’

প্রাণের গীটার
নতুন গান3 years ago

মাহফুজ ইমরানের‌ এক বছরের সাধনার ফসল ‘প্রাণের গীটার’ (ভিডিও)

কণ্ঠশিল্পী শাহজাহান শুভ
সৃজন মিউজিক4 years ago

শাহজাহান শুভ’র ‘কথামালা’ গান অন্তর্জালে

ওমরসানী, শাকিব খান ও জায়েদ খান
বিনোদন4 years ago

শাকিব খানের কাছে ক্ষমা চাইলেন জায়েদ খান

নতুন গান4 years ago

রোহিঙ্গাদের নিয়ে গান গাইলো অবস্‌কিওর

সৃজন মিউজিক4 years ago

প্রকাশ হলো ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবির অরিজিত সিংয়ের সেই গান

ব্যান্ড সঙ্গীত4 years ago

শাকিরার নতুন মিউজিক ভিডিও ‘পেরো ফিয়েল’

মিউজিক ভিডিও4 years ago

তানজীব সারোয়ারের নতুন গান

মিউজিক ভিডিও4 years ago

ইউটিউবে কুমার বিশ্বজিতের নতুন গান ‘জোছনার বর্ষণে’

Trending