Connect with us

বিনোদন

‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলন সার্থক’

Published

on

চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন

ফয়সাল আহমেদ :

১৯৯৩ সালের ২২ অক্টোবর কক্সবাজারে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের স্ত্রী জাহানারা। তারপর থেকেই ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ (নিসচা) নামের আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটে। এরই ধারাবাহিকতায় ২২ অক্টোবরকে ‘জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস’ ঘোষণার দাবি করা হয়। গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে দিনটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়। এ বিষয়ে কথা হয় ইলিয়াস কাঞ্চনের সঙ্গে।

এতদিন যাবৎ একটি আন্দোলন করছেন। অবশেষে সেটি সফল হয়েছে। কেমন লাগছে?
সাধারণ মানুষের জন্য আন্দোলন করছি গত ২৪ বছর ধরে। নিরাপদ সড়ক অবশ্যই দরকার। এমন আন্দোলন সফল হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই খুব ভালো লাগছে। ২৪ বছরের একটি দাবি পূরণ হয়েছে। এটি অনেক আনন্দের বিষয়। আর এ আনন্দের কথা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। এ জন্য ধন্যবাদ দিতে চাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। তিনি বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়েছেন বলেই এখন থেকে প্রতিবছর ২২ অক্টোবর সরকারিভাবে ‘জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস’ পালন হবে।

ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করতে চাই না যোগাযোগমন্ত্রীকে। তিনিই বিষয়টি মন্ত্রিসভায় প্রস্তাব করেছেন। সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে ২২ অক্টোবরকে ‘জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস’ ঘোষণা করে দিবসটিকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এ সংক্রান্ত ‘খ’ ক্রমিকে অন্তর্ভুক্তের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়।

১১ জুলাইও কিন্তু ‘জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস’ হতে পারত-
আগে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস ছিল না। এ দিবস ঘোষণার পেছনে আমার সংগঠনের কৃতিত্ব আছে। আমার সংগঠনই নিরাপদ সড়ক চাই দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছিল, নিরাপদ সড়ক দিবস থাকা উচিত। ২২ অক্টোবর আমার স্ত্রী সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান, সে জন্য সংগঠনটি এ দিনটিকে ঘোষণার দাবি করে আসছিল। তা ছাড়া চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে ২০১১ সালের ১১ জুলাই বাংলাদেশের ইতিহাসের অন্যতম বড় দুর্ঘটনায় ৪৩ জন স্কুলছাত্রের মৃত্যুর দিনটিও নিরাপদ সড়ক দিবসের সম্ভাব্য তারিখ হিসেবে প্রস্তাবও করা হয়েছিল। কিন্তু সার্বিক বিবেচেনায় সাব্যস্ত হয়েছে ২২ অক্টোবর। এতদিন কিন্তু ২২ অক্টোবর অনানুষ্ঠানিকভাবেও দিবসটি পালন করা হচ্ছিল।

এত বছর আন্দোলন করছেন। কখনো হতাশা কাজ করেনি?
আমি হতাশ নই। ২৪ বছর ধরে নিজের মতো করে লড়াই করছি। এখন দিবসটি ঠিকভাবে পালন করার চেষ্টা করব। আমার স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চনের মৃত্যুর পর প্রতিজ্ঞা করেছিলাম, সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে কাজ করব। সত্যি কথা বলতে কী, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে কোনো সরকারের কাছ থেকে তেমন কোনো সহযোগিতা পাইনি। সরকার যদি কোনো কিছুতে থাকে, তাতে মানুষের আস্থা বাড়ে। যে কোনো আন্দোলন করতে গেলে টাকা লাগে। প্রচারের জন্যও দরকার অনেক অর্থ। তাই সরকারের কাছে প্রস্তাব দিলাম, সড়ক দুর্ঘটনা রোধের আন্দোলনে আর্থিক সহযোগিতা করতে। এই সরকার সেটি করেছে। আমি হতাশা হলে কিন্তু সফল হতাম না।
আপনি এক সময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক। আপনার অনেক ভক্ত। এই আন্দোলন করতে এসে সেই জনপ্রিয়তা নিশ্চয় কাজে লেগেছে-

অবশ্যই কাজে লেগেছে। মানুষের ভালোবাসা পেয়েছি। মানুষ আমার এই আন্দোলনটিকে গ্রহণ করেছে। মানুষের ভালোবাসা আছে বলেই এখনো কাজ করে যেতে পারছি। না হলে পারতাম না।

চলচ্চিত্র প্রসঙ্গে একটু কথা বলি। ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ বাংলাদেশের একটি ইতিহাস। ছবিটি নিয়ে কিছু বলুন-
সেই সময়ে আমি প্রচণ্ড ব্যস্ত নায়ক। ছবির পরিচালক-প্রযোজক আমাকে নিয়ে বেদের মেয়ে জোসনা নির্মাণ করতেই ভয় পাচ্ছিলেন। তাদের ধারণা ছিল আমি সিডিউল দিতে পারব কিনা? পাশাপাশি এ সিনেমার নায়িকার (অঞ্জু ঘোষ) টানা ১৮টি ছবি ফ্লপ ছিল। ফলে প্রডিউসারের সঙ্গে হল মালিকদের একটা গণ্ডগোল লেগে গেল। চট্টগ্রামের যে হল মালিকদের সঙ্গে প্রডিউসারের কথা হয়েছিল, তারা পরে নিষেধ করে দিয়েছে।

প্রডিউসার আব্বাস সাহেব যখন বসে কথা বলছিলেন হল মালিকদের সঙ্গে, ওরা ছবি চালাতে রাজি না হওয়ায় তিনি ঘুষি দিয়ে টেবিল ভেঙে ফেলেছিলেন। তার পর, হল মালিকরা ছবির প্রিন্ট ফেরত দিতে চাইছিলেন না। যতদিন প্রদর্শনের চুক্তি আছে তারচেয়ে বেশি দিন তারা জোর করে প্রদর্শন করছে। একসময় প্রডিউসার পুলিশ দিয়ে এসব প্রিন্ট ফিরিয়ে আনতে বাধ্য হলো। সারা দেশে একটা হৈ-চৈ পড়ে গেল।

বাংলা চলচ্চিত্রের সুদিন নেই, এ অবস্থাকে কি অভিভাবকহীনতা বলবেন?

অনেকটা সে রকমই। পাকিস্তান পিরিয়ড থেকেই আমাদের চলচ্চিত্র অভিভাবকহীন অবস্থায় চলছে। বঙ্গবন্ধুর সময় বাদে পাকিস্তান পিরিয়ড কিংবা বঙ্গবন্ধুর পরবর্তী সময়ে সরকারি কোনো উদ্যোগ ছিল না চলচ্চিত্রের জন্য। কোনো অভিভাবক ছিল না এ শিল্প রক্ষার। তা হলে একটা দেশের চলচ্চিত্র দাঁড়াবে কী করে? বঙ্গবন্ধুর সময় সবাই পরিশ্রম করেছে। তারপর কোনো সরকার সেভাবে উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নেয়নি।

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Dhaka Attack Unreleased Song

Advertisement
কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী
সৃজন মিউজিক2 years ago

কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী (ভিডিও)

Praner Giutar
নতুন গান3 years ago

ভালোবাসা দিবসে দুই বাংলার মিশ্রণে ‘প্রাণের গীটার’

প্রাণের গীটার
নতুন গান3 years ago

মাহফুজ ইমরানের‌ এক বছরের সাধনার ফসল ‘প্রাণের গীটার’ (ভিডিও)

কণ্ঠশিল্পী শাহজাহান শুভ
সৃজন মিউজিক4 years ago

শাহজাহান শুভ’র ‘কথামালা’ গান অন্তর্জালে

ওমরসানী, শাকিব খান ও জায়েদ খান
বিনোদন4 years ago

শাকিব খানের কাছে ক্ষমা চাইলেন জায়েদ খান

নতুন গান4 years ago

রোহিঙ্গাদের নিয়ে গান গাইলো অবস্‌কিওর

সৃজন মিউজিক4 years ago

প্রকাশ হলো ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবির অরিজিত সিংয়ের সেই গান

ব্যান্ড সঙ্গীত4 years ago

শাকিরার নতুন মিউজিক ভিডিও ‘পেরো ফিয়েল’

মিউজিক ভিডিও4 years ago

তানজীব সারোয়ারের নতুন গান

মিউজিক ভিডিও4 years ago

ইউটিউবে কুমার বিশ্বজিতের নতুন গান ‘জোছনার বর্ষণে’

Trending