Connect with us

সৃজন মিউজিক

‘বিখ্যাত গায়ক’ চরিত্রটি ছিল লাকি আখন্দ স্যার’

Published

on

প্রয়াত কন্ঠশিল্পী লাকি আখন্দ

সানি সানোয়ার :

পুলিশী জীবনে ঘটে যাওয়া নানা ঘটনা নিয়ে অনেক কিছুই তো লিখি। গত ১৮ আগষ্ট ২০১৬-তে তেমন একটা কিছু লিখেছিলাম। সেই লেখায় অনুহ্য থাকা ‘বিখ্যাত গায়ক’ চরিত্রটি ছিল প্রয়াত কন্ঠশিল্পী লাকি আখন্দ স্যারের। তখন ইচ্ছা করেই তার নামটি উহ্য রেখেছিলাম যদি তিনি বিব্রত হোন -এটা ভেবে। কিন্তু আজ সমস্ত বিব্রতবোধের উর্ধ্ব চলে গেছেন তিনি।
বাঙালী জাতির ইতিহাসে যে কয়জন কিংবদন্তী গায়কের নাম শুধু তার কালজয়ী গানের কারণে লেখা থাকবে, তাদের মধ্যে লাকী আখন্দ এবং হ্যাপী আখন্দ সহোদর অন্যতম।
গতকাল আমাদের ছেড়ে চলে যাওয়া সেই মহান ব্যক্তির স্মরণে আমার সেই ক্ষুদ্র লেখাটি রি-পোষ্ট করলাম:


“৫/৬ বছর আগের কথা।
পুরান ঢাকার একটি ফ্ল্যাটে এক গলিত লাশের ক্রাইমসিনে কাজ করছিলাম। লোডশেডিং চলায় চারিদিকে ঘুটঘুটে অন্ধকার। ফ্ল্যাটটি বাইরে থেকে তালাবদ্ধ। ভিতর থেকে প্রচন্ডরকমের পঁচা গন্ধ বেরুচ্ছে। এই গন্ধে অতিষ্ঠ হয়েই প্রতিবেশীরা পুলিশে খবর দেয়।
তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করলাম। অসহ্য গন্ধে নাড়িভুঁড়ি পর্যন্ত কেঁপে উঠল। তবুও নাকমুখ চেপে এই গন্ধের উৎস খোঁজতল্লাশি করতে লাগলাম। বিকট দুর্গন্ধটা ক্রমেই বেড়ে যাচ্ছিল। শেষমেশ একটি বাথরুমে একজন নারীর লাশের সন্ধান মিলল। পাশেই পড়ে ছিল একটি রক্তাক্ত বটি। মোবাইলের আলোতে গলিত লাশের বিভৎস দৃশ্য দেখে টিকে থাকা মুশকিল হয়ে গেল। শুধু জামাকাপড় ছাড়া আর কোনভাবেই বুঝার উপায় নেই যে, এটা কোন মনুষ্য প্রজাতির লাশ। আর জামাকাপড় থেকেই অনুমান করে নিলাম যে তিনি একজন নারী ছিলেন।
ন্যুনতম যতটুকু দুরত্ব থেকে ঘটনাটি আঁচ করা যায়, ঠিক ততটুকু দূরে দাঁড়িয়ে থাকলাম। মনে হচ্ছিল যেন পঞ্চইন্দ্রিয় একসাথে বন্ধ হয়ে আসছে। এবার ফ্ল্যাট থেকে বের হয়ে এসে সিঁড়িতে দাঁড়ালাম।
পাশের ফ্ল্যাটের লোকজন বেশ উৎকণ্ঠা নিয়ে আমাদের কার্যক্রম দেখছে। এক প্রশ্নের উত্তরে পার্শ্ববর্তী ফ্ল্যাটের একজন ভদ্রমহিলা জানালেন,”এরা মাত্র ৭/৮ দিন আগে উঠেছে। এখনও ঠিকভাবে পরিচয় হয়নি তাদের সাথে। যেদিন উঠেছে তারপরের দিন থেকে ফ্ল্যাটটি তালাবদ্ধ দেখতেছি। গত ৪/৫ দিন ধরেই পঁচা গন্ধ পাচ্ছিলাম। কিন্তু গতকাল থেকে আর টিকে থাকা যাচ্ছিল না। …. ফ্ল্যাটের ভিতরে অসংখ্য মাছি আসা যাওয়া করায় বুঝতে পারলাম এই ফ্ল্যাটের ভিতরেই কিছু হয়তো মরে পঁচে আছে। …. তাই বাড়িওয়ালা এবং পুলিশকে খবর দিলাম।
ফ্ল্যাটের মালিক সেখানে থাকেন না। তাই সিকিউরিটি গার্ডই স্থানীয় মালিক। সিকিউরিটি গার্ড বলল,”৮দিন আগে তারা উঠেছে। বেশি ভাড়া দিতে রাজী হওয়ায় ভাড়া দিয়েছিলাম। বেশি তথ্য রাখিনি। শুধুই স্বামী-স্ত্রী থাকতো। বাসায় যেদিন উঠেছে তারপর দিন থেকে ফ্ল্যাট তালাবদ্ধ।…. আর আজ দেখি এই অবস্থা।”
এর মধ্যে ফ্ল্যাটের মালিক চলে এসেছেন। মধ্যবয়সী ভদ্রলোককে খুবই বিমর্ষ দেখাচ্ছে। তিনি আগে গার্ডের সাথে কথা বলতে চাচ্ছেন। কাছে আসার পর তাকে চিনতে পারলাম তিনি এদেশের একজন বিখ্যাত সংগীত ব্যক্তিত্ব। তার বডি ল্যাঙ্গুয়েজে প্রচন্ডরকম অপরাধবোধের ছাপ লক্ষ্য করলাম। চরম বিরক্তির মাঝেও মূহূর্তের মধ্যে তার গাওয়া কয়েকটি বিখ্যাত গানের সুর স্মরণ করে একটু এগিয়ে গিয়ে সালাম দিলাম। শ্রদ্ধাভরে সম্বোধন করে হ্যান্ডশেইক করলাম। তিনি অনেকটা অবাক, অপ্রস্তুত, মুগ্ধ এবং বেয়াক্কেল হয়ে আমার দিকে তাকিয়ে রইলেন।
এদিকে পুলিশের অন্যান্য অফিসার নানা কাজে ব্যস্ত। প্রচণ্ড গরম, অসহ্য গন্ধ এবং মৃত নারীর ন্যুনতম কোন তথ্য না পাওয়ায় সব অফিসার কেমন যেন ‘ক্র‍্যাংকি’ হয়ে উঠেছে। হঠাৎ আমার একজন অফিসার তেড়ে এসে সেই বাড়িওয়ালা (গায়ক ভাই) -কে বলল,
“এই যে বাড়িওয়ালা ভাই, কোথাও থেকে একটা চার্জার লাইট নিয়ে আসেন তো। আর সম্ভব হলে দু’বোতল ঠান্ডা পানি।”
আমি কিছুটা অপ্রস্তুত হয়ে অফিসারটিকে নিবারণ করতে তার পরিচয়টা জানালাম এবং সম্মানের সাথে কথা বলতে বললাম। গায়কের বিকল্প হিসেবে একজন কন্সটেবল দিয়ে জিনিসগুলো আনার ব্যবস্থা করলাম।
গায়ক ভাই সেদিনের পর থেকে আমাকে ভোলেননি। জীবনের এক চরম মূহূর্তে তিনি এতটুকু সম্মানে যে কতটুকু মুগ্ধ হয়েছিলেন তা তিনি বছরের পর বছর ধরে নানাভাবে বুঝিয়েছেন।
মানুষ মানুষের ব্যবহার, সম্মান, স্নেহ-ভালবাসা পেলে খুশি হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্ত এই খুশি বা মুগ্ধ হওয়াটা নির্ভর করে পরিস্থিতির উপরে। কোন পরিস্থিতি সে এটা পেল এটাই বড় করে দেখে।…. স্বাভাবিক তৃষ্ণায় এক লাখ লিটার ঠান্ডা পানি, আর অস্বাভাবিক যন্ত্রণাময় তৃষ্ণার সময় হাফ-গ্লাস গরম পানি একই রকম কৃতজ্ঞতাবোধের জন্ম দেয় না। এখানে পরিমান ও উষ্ণতার তারতম্য মূখ্য নয়, পরিস্থিতিটাই মুখ্য।
আর একটি কথা:
শুধুমাত্র জঙ্গিরা নয়, অন্যান্য অপরাধীরাও নির্বিঘ্নে কাউকে হত্যার জন্য আপনার বাসা ভাড়া নিতে পারে।
তাই, বাসা ভাড়া দেয়াটা নিজেই নিয়ন্ত্রণ করুন । আর তথ্য নিশ্চিত না হলে বাসা খালি রাখুন। এতে অপরাধী ব্যতিত সবাই উপকৃত হবে।”
(পুন: প্রকাশ, প্রথম প্রকাশ: ১৮ আগষ্ট ২০১৬)

লেখক : সানি সানোয়ার ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগের স্পেশাল অ্যাকশন গ্রুপের এডিসি (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার)

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Dhaka Attack Unreleased Song

Advertisement
কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী
সৃজন মিউজিক2 years ago

কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী (ভিডিও)

Praner Giutar
নতুন গান3 years ago

ভালোবাসা দিবসে দুই বাংলার মিশ্রণে ‘প্রাণের গীটার’

প্রাণের গীটার
নতুন গান3 years ago

মাহফুজ ইমরানের‌ এক বছরের সাধনার ফসল ‘প্রাণের গীটার’ (ভিডিও)

কণ্ঠশিল্পী শাহজাহান শুভ
সৃজন মিউজিক3 years ago

শাহজাহান শুভ’র ‘কথামালা’ গান অন্তর্জালে

ওমরসানী, শাকিব খান ও জায়েদ খান
বিনোদন3 years ago

শাকিব খানের কাছে ক্ষমা চাইলেন জায়েদ খান

নতুন গান3 years ago

রোহিঙ্গাদের নিয়ে গান গাইলো অবস্‌কিওর

সৃজন মিউজিক3 years ago

প্রকাশ হলো ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবির অরিজিত সিংয়ের সেই গান

ব্যান্ড সঙ্গীত3 years ago

শাকিরার নতুন মিউজিক ভিডিও ‘পেরো ফিয়েল’

মিউজিক ভিডিও3 years ago

তানজীব সারোয়ারের নতুন গান

মিউজিক ভিডিও3 years ago

ইউটিউবে কুমার বিশ্বজিতের নতুন গান ‘জোছনার বর্ষণে’

Trending