Connect with us

অন্য মিডিয়া

লাইক, ভিউ দিয়ে পেট ভরলে ওয়েলকাম

Published

on

ব্যান্ড লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চু
  • তারেক আনন্দ

আজ চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে অনুুষ্ঠিত হচ্ছে তৃতীয় ব্যান্ড ফেস্ট। চ্যানেল আইর আয়োজনে এবারের ফেস্টে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশের ২৭টি ব্যান্ডদল। বেলা ১১টা ০৫ মিনিটে উদ্বোধনের পর ‘উচ্চারণ’ ব্যান্ডের পারফরমেন্সের মধ্য দিয়ে শুরু হবে ‘ব্যান্ড ফেস্ট’ উৎসব। অনুষ্ঠান চলবে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। সর্বশেষ মঞ্চ মাতাবে ব্যান্ডদল এলআরবি। ব্যান্ড ফেস্ট ও সংগীতের নানা বিষয় নিয়ে কথা হয় ব্যান্ড লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চুর সঙ্গে।

আজ ব্যান্ড ফেস্টে সংগীত পরিবেশন করবেন। এই আয়োজন নিয়ে কিছু বলুন।

আমি তো একা পরিবেশন করব না। উদ্যোগটা আমার নেওয়া। এখানে ২৭টি ব্যান্ড পারফর্ম করবে। বেশিরভাগই তরুণ প্রজন্ম। আগামীতে হয়তো এটা আরও বড় আয়োজনে হবে। প্রথমবার অংশ নিয়েছিল ১৮টি ব্যান্ড। এর পরের বার ২১টি। এবার ২৭টি ব্যান্ড পারফর্ম করছে। ওরাই মূলত পারফর্ম করবে, আমি তাদের সঙ্গে থাকব। আমার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে, তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। ১ ডিসেম্বর আমাদের ব্যান্ড মিউজিক ডে হয়ে গেছে। ডিসেম্বরের ১ তারিখ বিজয় দিবসের প্রথম দিন। কারণ মুক্তিযুদ্ধে ব্যান্ডসংগীতের ব্যাপক অবদান ছিল। তার মধ্যে গুরু আজম খানও একজন ছিলেন। বিজয়ের প্রতীক হিসেবেই ১ ডিসেম্বরকে বেছে নেওয়া হয়েছে এই ব্যান্ড ফেস্ট উৎসবের জন্য।

নতুন ব্যান্ডগুলো কেমন করছে, আপনার কাছে কী মনে হয়?

খুব ভালো করছে। ওদের নতুনভাবেই দেখতে হবে। দৃষ্টিভঙ্গি সবাইকে পাল্টাতে হবে। ওদেরকে ওদের স্টাইলেই দেখতে হবে। বড়দের গান শুনে হয়তো তারা বড় হয়নি। ওদের জন্মের পর ওরা অনেক নতুন নতুন গান পেয়েছে, মিউজিক পেয়েছে। অনলাইন পেয়েছে। ওদের গানের কথার ধরনও হয়তো ভিন্ন। ওদেরকে শুনতে হবে। ওদের সুযোগ দিতে হবে।

আপনাদের হাত ধরেই ব্যান্ডসংগীতের একটা সুন্দর সময় পার হয়েছে। নতুনরা কি পারবে এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে?

ব্যান্ড মিউজিক যথেষ্ট এগিয়ে গেছে। এখন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছেলেরা ব্যান্ড মিউজিক করছে। নিজেরা নিজেরাই ব্যান্ড মিউজিক করছে এবং আমি বলব, যার যার নিজের প্রচেষ্টায় ভালোই করছে। তবে সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশে পুরো সংগীতই একটা কুয়োর মধ্যে পড়েছে। এটা ব্যান্ড মিউজিক নয়, পুরো অডিও ইন্ডাস্ট্রি কুয়োর মধ্যে পড়ে গেছে। কারণ কে কোথায় গান করবে, কেন করবে, কার জন্য করবে, কীভাবে গান করবে, কোথায় রিলিজ হবে, শিল্পীর কী মুনাফা আসবে, না আসবে না, কিছুই জানে না। শিল্পীরা গান করা বন্ধ করে দিয়েছে। আর একটা দোটানা মনোভাব নিয়ে সবাই সবার সঙ্গে চলাচল করছে। কারোর সঙ্গে কারোর বন্ধুত্ব আছে, কারোর সঙ্গে কারোর শত্রুতা, কেউ কাউকে পছন্দ করে, কেউ আবার কাউকে অপছন্দ করে। এই জায়গাগুলোকে পরিষ্কার করে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। ব্যক্তিগত কেউ কাউকে অপছন্দ করতেই পারে। সর্বক্ষেত্রে একটা জিনিস মাথায় রাখতে হবে যে, মিউজিক আমাদের সবার। মিউজিকটাকে মাথায় রেখে সবাই একসঙ্গে মিলে থাকতে হবে।

কয়েক বছর ধরে অনলাইনে প্রকাশ হচ্ছে গান। সংগীতের সময় নাকি ভালো যাচ্ছে। আপনি কীভাবে দেখছেন?

যারা বলছে ভালো হচ্ছে, তাহলে ভালো। ইউটিউবে গান প্রকাশ হলে শিল্পীর কী হচ্ছে আমি জানি না। ভিউয়ে যদি পেট ভরে তাহলে আমার কিছু বলার নেই। ক্ষুধা তো আছে নাকি, পেটে তো ভাত দিতে হয়। লাইক, ভিউ দিয়ে যদি পেট ভরে তাহলে আমি ওয়েলকাম জানাই। যখন সিডি, অডিও ক্যাসেট বিক্রি হতো, তখন কিন্তু দুই টাকা ঘরে নিয়ে আলু, পটোল, অন্তত তরিতরকারি কিনে বউ-সন্তান নিয়ে আরাম করে খেতে পারত শিল্পীরা। ওই দিনটা এখন আর নেই। আর ইউটিউবে গান প্রকাশ করার পর এত বেশি ধোঁয়াশা যে, এখনো সবাই স্বচ্ছ নয়, পরিষ্কার নয়।

তা হলে কি অডিও ইন্ডাস্ট্রি ঘুরে দাঁড়ায়নি?

অডিও ইন্ডাস্ট্রি ঘুরে দাঁড়াবে তখন, যারা ব্যবসা করছে তারা ভাববে হ্যাঁ ব্যবসা করব, আর যদি ভাবেন ব্যবসা করব না, তাহলে ছেড়ে দিতে হবে। অন্য কাউকে করতে দিতে হবে। একদম ছেড়েই দেওয়া উচিত তাদের। এখানে অন্তত ডিস্টার্ব করার দরকার নেই। ওনারা দামি দামি গাড়ি বাড়ি যেভাবে করেছেন, শিল্পীদের দিকেও নজর দিতে হবে।

এলআরবির কোনও অ্যালবাম, গান প্রকাশ করতে যাচ্ছে?

যতক্ষণ পর্যন্ত গান তৈরি করতে না পারছি ততক্ষণ পর্যন্ত বলতে পারছি না। দ্বিতীয় কথা হচ্ছে, গানটা কাকে দেব, কীভাবে দেব? যেটার কোনো রিটার্ন নেই। অ্যালবাম তো এই মুহূর্তে করছিই না। আমরা ডিসেম্বর থেকে শুরু করে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত ব্যস্ত আছি কনসার্ট নিয়ে। এলআরবির ২৫ বছর পূর্তি ২০ ডিসেম্বর। এ উপলক্ষে বসুন্ধরার নবরাত্রী হলে অনুষ্ঠান করব।

আপনি চলচ্চিত্রেও গান করেছেন। চলচ্চিত্রের গানে পাওয়া যাচ্ছে না কেন?

চলচ্চিত্রেও অস্থিরতা। আসলে অস্থিরের কিছুই নেই, অস্থিরতা আমরা নিজেরাই তৈরি করি। আমি বলব, চলচ্চিত্রের বাজার তো মরেই গেছে। ফিল্ম এখন নকল হয়ে যায়। গান যেভাবে নষ্ট হচ্ছে, ফিল্মও নষ্ট হয়েছে। ফিল্মঅলাদের মূল কথায় আসি, সচেতন কে হবে? আমরা যারা গান করছি, চলচ্চিত্র বানাচ্ছি তারা, নাকি শ্রোতা-দর্শক? তাদেরও তো দায়িত্ব থাকা উচিত। এই যে নকল পেলাম আর দেখলাম? নকল পেলে কি আমরা বিষও খাব? আর একটা ব্যাপারে আমি খুব কষ্ট পেয়েছি ক’দিন আগে। এটা তোমাদের সঙ্গে শেয়ার করতে চাই।

কোনটা বলুন তো?

আমি খুব বেশি ভালবাসি, শ্রদ্ধা করি আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলকে। ওনার গান নাকি পারমিশন ছাড়া, ক্রেডিট ছাড়া পাশের দেশের চলচ্চিত্রে ব্যবহার করেছে। এটা বোধহয় একটু নিজেদের ঠিক করে নেওয়া উচিত। সৃষ্টিশীল মানুষের সবচেয়ে বড় পাওনা হচ্ছে তার সাফল্য, স্বীকৃতি। তার এই দুঃখবোধটা যেন ঘুচিয়ে দেয়।

দুঃসময়ে শিল্পীদের পাশে দাঁড়াতে মেয়র আনিসুল হকের উদ্যোগে একটি ফাউন্ডেশন করা হয়েছে। এই উদ্যোগ কেমন লেগেছে আপনার কাছে?

এটার জন্য সাধুবাদ জানাই। মেয়র মহোদয় চমৎকার উদ্যোগ নিয়েছেন। তবে আমি বলব, আমার মৃত্যু যেন এর আগে হয়। আমার মৃত্যুর জন্য ওই দোরগোড়ায় পর্যন্ত না যায়।
—আমাদের সময় থেকে

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Dhaka Attack Unreleased Song

Advertisement
কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী
সৃজন মিউজিক2 years ago

কাজী শুভর গানে কলকাতার পল্লবী কর ও প্রেম কাজী (ভিডিও)

Praner Giutar
নতুন গান3 years ago

ভালোবাসা দিবসে দুই বাংলার মিশ্রণে ‘প্রাণের গীটার’

প্রাণের গীটার
নতুন গান3 years ago

মাহফুজ ইমরানের‌ এক বছরের সাধনার ফসল ‘প্রাণের গীটার’ (ভিডিও)

কণ্ঠশিল্পী শাহজাহান শুভ
সৃজন মিউজিক3 years ago

শাহজাহান শুভ’র ‘কথামালা’ গান অন্তর্জালে

ওমরসানী, শাকিব খান ও জায়েদ খান
বিনোদন3 years ago

শাকিব খানের কাছে ক্ষমা চাইলেন জায়েদ খান

নতুন গান3 years ago

রোহিঙ্গাদের নিয়ে গান গাইলো অবস্‌কিওর

সৃজন মিউজিক3 years ago

প্রকাশ হলো ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবির অরিজিত সিংয়ের সেই গান

ব্যান্ড সঙ্গীত3 years ago

শাকিরার নতুন মিউজিক ভিডিও ‘পেরো ফিয়েল’

মিউজিক ভিডিও3 years ago

তানজীব সারোয়ারের নতুন গান

মিউজিক ভিডিও3 years ago

ইউটিউবে কুমার বিশ্বজিতের নতুন গান ‘জোছনার বর্ষণে’

Trending